কিশোরগঞ্জের হোসেনপুরে বন্ধ হয়ে যাওয়া বেকারিতে কাজ দেয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে এক কিশোরীকে গণধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে ওই প্রতিষ্ঠানটির চার শ্রমিকের বিরুদ্ধে। শুক্রবার ( ১৭ এপ্রিল) রাতে উপজেলার জিনারি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধির পাঠানো টাইম বাংলা টিভি র ডেস্ক রিপোর্ট…

শনিবার (১৮এপ্রিল) দুপুরে মেয়েটিকে উদ্ধার করে পুলিশ। আটক করা হয় জাহাঙ্গীর, তারা মিয়া ও জামান নামে তিন যুবককে।
পুলিশ জানায়, হোসেনপুর উপজেলার শাহেদল ইউনিয়নের এসআরডি স্কুলের পেছনে একটি বেকারিতে শ্রমিকের কাজ করতেন কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার বিন্নাটি এলাকার এক কিশোরী। চলমান করোনা পরিস্থিতে বেকারিটি বন্ধ হয়ে যায়। বেকারি চালু হয়েছে, কাজে যোগ দিতে হবে – এমন মিথ্যা খবরে শুক্রবার বিকেলে মেয়েটিকে হোসেনপুর যেতে বলে তারই সহকর্মী জিনারী গ্রামের মৃত আ. সাত্তারের ছেলে জাহাঙ্গীর। কিশোরী সরল বিশ্বাসে হোসেনপুর গেলে জাহাঙ্গীর সন্ধ্যার দিকে তাকে একই গ্রামে অবস্থিত তার বোনের জামাই তারা মিয়ার বাড়িতে নিয়ে যায়। রাতে মেয়েটিকে বাড়ি পৌঁছে দেয়ার কথা বলে জাহাঙ্গীর, তারা মিয়া, জামান ও সুমন তাকে জিনারী এলাকায় মনসুর মেম্বারের বাড়ির পেছনে একটি জঙ্গলে নিয়ে গভীর রাত পর্যন্ত পালাক্রমে ধর্ষণ করে।

মেয়েটির অভিযোগ, ভোররে বিষয়টি মনসুর মেম্বারকে জানানো হলে তিনি মীমাংসার চেষ্টা করেন। খবর পেয়ে শনিবার দুপুরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মেয়েটিকে উদ্ধার করে। আটক করে ওই তিন ধর্ষককে। তবে পালিয়ে যায় সুমন নামে এক জন।
হোসেনপুর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. সোনাহর আলী জানান, মেয়েটিকে উদ্ধার করা হয়েছে। তিন যুবককে আটক রা হয়েছে। আরেকজন পালিয়ে গেছে। তাকে আটকের চেষ্টা চলছে।

হোসেনপুর থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শেখ মোস্তাফিজুর রহমান জানান, এ ব্যাপারে থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *